প্রবেশগম্যতা সেটিংস

Illustration: Marcelle Louw for GIJN

রিসোর্স

» গাইড

বিষয়

মিথেন গ্যাসের উৎস অনুসন্ধানের গাইড – যা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার মূল চাবিকাঠি

আর্টিকেলটি পড়ুন এই ভাষায়:

English

Climate Change Reporting Guide

ছবি: জিআইজেএনের জন্য এঁকেছেন মার্সেল লু

মিথেন গ্যাসের উৎস নিয়ে সাংবাদিকতা ক্রমেই আরও জরুরী হয়ে উঠছে।

পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার দ্রুততম পথ হলো মিথেন নিঃসরণ হ্রাস করা। গ্রিনহাউস গ্যাসগুলোর মধ্যে কার্বন ডাই অক্সাইডের পর মিথেনের পরিমাণ-ই সবচেয়ে বেশি, যার নিঃসরণ ক্রমেই বাড়ছে এবং নতুন উচ্চতায় পৌঁছাচ্ছে।

মিথেন নিয়ে সাংবাদিকতা করার ক্ষেত্রে জিআইজেএনের পূর্ণাঙ্গ গাইডটি এমনভাবে সাজানো হয়েছে, যেন তা অনুসন্ধানী রিপোর্টারদের মিথেন নিঃসরণের সুনির্দিষ্ট উৎস চিহ্নিত করতে এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও দেশকে জবাবদিহির আওতায় আনতে সহায়তা করে। এখানে আমরা তুলে ধরেছি: 

এখানে থাকছে আমাদের পরামর্শ ও টুলগুলোর একটি সংক্ষিপ্ত সংস্করণ।

ডেটাকে প্রশ্ন করুন

Climate Change Reporting Guide - Chapter One Small

ছবি: জিআইজেএনের জন্য এঁকেছেন মার্সেল লু

বিজ্ঞানীরা একমত যে, মিথেন নিঃসরণের হিসেব নিয়মিতভাবে কম করে দেখানো বা উপেক্ষা করা হয়। ফলে, খোদ পরিমাপ পদ্ধতি রিপোর্টিংয়ের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ওঠে।

মিথেন নিঃসরণ নিয়ে প্রাথমিক তথ্যের অনেক উৎস আছে।

প্যারিসভিত্তিক আন্তঃসরকারি সংস্থা, ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি (আইইএ) সামগ্রিক মিথেন নিঃসরণ ট্র্যাক করে এবং এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করে, যা অতি সম্প্রতি পাওয়া যাচ্ছে মিথেন ট্র্যাকার ২০২১-এ । আইইএ’র মিথেন ট্র্যাকার ডেটাবেসে নিঃসরণ ও “হ্রাসকরণ সম্ভাবনার”দেশভিত্তিক ডেটা পাওয়া যায়।

প্রতিবেদনের ধারণা:

  • আপনার দেশে কতটা নিঃসরণ হয়?
  • এর উৎপত্তি কোথায়?
  • পরিমাপ কি ঠিক আছে?

ইউনাইটেড নেশন্স ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ (ইউএনএফসিসিসি) অনুযায়ী, প্রতিটি দেশের সরকারের ইউএন ক্লাইমেট চেঞ্জে জাতীয় মিথেন নিঃসরণ ডেটা জমা দেওয়ার কথা। 

উন্নত দেশগুলো তাদের গ্রিনহাউস গ্যাস নিঃসরণ নিয়ে ন্যাশনাল ইনভেন্টরি রিপোর্ট (এনআইআর) নামের বার্ষিক প্রতিবেদন পেশ করে। (ইউএনএফসিসিসি’র সাইটে ন্যাশনাল ইনভেন্টরি সাবমিশনস্ ২০২১ দেখুন)। উন্নয়নশীল দেশগুলো তাদের হালনাগাদ দ্বিবার্ষিক প্রতিবেদনের (বিইউআরএস) অংশ হিসেবে নিঃসরণ ডেটার হিসেব দেয়।

মিথেন নিঃসরণ পরিমাপের একটি গুরুতর দুর্বলতা হলো, প্রতিটি দেশ নিজস্ব প্রাক্কলন তৈরির জন্য আলাদা পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারে। ফলে ডেটা প্রশ্নবিদ্ধ হয়।

সরকারের সংগৃহীত মিথেন নিঃসরণ ডেটা নিয়ে আরও একটি মৌলিক সমস্যা হলো, এই ডেটাগুলো হিসাব আর সমীকরণ নির্ভর, প্রকৃত পরিমাপভিত্তিক নয়। কিছু কিছু দেশ এই সমস্যা নিয়েই এ সংক্রান্ত আইন প্রণয়ন করছে।

মিথেন লিক অনুসন্ধান

Climate Change Reporting Guide - Chapter Two

ছবি: জিআইজেএনের জন্য এঁকেছেন মার্সেল লু

বিশেষ করে প্রাকৃতিক গ্যাস ও তেল উৎপাদনের মতো মিথেন গ্যাসের উৎসগুলো উন্মোচন করা সম্ভব।

সনাক্তকরণের জন্য ইনফ্রারেড ক্যামেরা ও স্যাটেলাইট লাগবে। তার মানে, এই ধরনের কাজের জন্য বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতা দরকার হবে।

ইনফ্রারেড ক্যামেরা আছে, এমন দুটি পরিবেশবাদী দল খুঁজে পেয়েছে জিআইজেএন। তারা সম্ভাব্য মিথেন নিঃসরণকারীদের নিয়ে বাস্তবসম্মত অনুসন্ধানে রিপোর্টারদের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী।

প্রতিবেদনের ধারণা:

  • ইনফ্রারেড ক্যামেরা সম্পন্ন দল বা বিজ্ঞানীদের সঙ্গে কাজ করুন, যেন লিক সনাক্ত করা যায়।
  • ক্রমবর্ধমান সোর্সগুলো থেকে স্যাটেলাইট ছবি পাওয়ার চেষ্টা করুন।

ক্লিন এয়ার টাস্ক ফোর্স (সিএটিএফ) ইউরোপজুড়ে তেল ও গ্যাস নিঃসরণ নথিবদ্ধ করছে এবং অন্যান্য অঞ্চলেও এই কাজ সম্প্রসারণের চেষ্টা চালাচ্ছে। ইউটিউবে এই প্রকল্পের বর্ণনা এবং এখানে ইনফ্রারেড প্রযুক্তি (ওজিআই) ব্যবহারের ব্যাখ্যা দেয়া আছে।

সিএটিএফ ক্যামেরা অপারেটরের সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী সাংবাদিকদের রোয়ান এমসাইলের সঙ্গে যোগাযোগ করা উচিত।

ইনফ্রারেড ক্যামেরার সক্ষমতা সম্পন্ন এবং সাংবাদিকদের সঙ্গে সহযোগিতামূলক কাজে আগ্রহী আরও একটি বেসরকারি সংস্থা, আর্থওয়ার্কস। আগ্রহী সাংবাদিকেরা জাস্টিন ওয়াস বা জশ এইসেনফেল্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। 

স্যাটেলাইট ছবি নির্ভর নিঃসরণ-তথ্যের কিছু বাণিজ্যিক উৎস আছে। কিছু প্রতিষ্ঠান বিনামূল্যে এবং কম দামে সীমিত পরিসরে তথ্য দিয়ে থাকে।

মার্কিন প্রতিষ্ঠান জিওফাইনান্সিয়াল অ্যানালিটিক্স, সম্প্রতি মিথেনস্ক্যান ডেটা লেক নামে নতুন একটি পণ্য এনেছে। তাদের আরও কয়েকটি পণ্য আছে।  বিশ্বজুড়ে, বিশেষত উত্তর আমেরিকায়, এক লাখের বেশি জ্বালানি শক্তি উৎপাদকের মিথেন নিঃসরণ রেটিং দিয়ে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। তারা অলাভজনক সংস্থা ও “বিত্তহীন” সাংবাদিকদের জন্য ৫০% ছাড়ে (প্রতি মাসে ১০০০ ডলার) ডেটাসেট ও ম্যাপ দিতে পারে।

কেইরস নামের আরেকটি ডেটা অ্যানালিটিকস প্রতিষ্ঠান, কখনো কখনো প্রেস রিলিজ বা অ্যালার্টের মাধ্যমে সাংবাদিকদের কাছে তাদের গবেষণালব্ধ ফলাফল পাঠায়। প্রতিষ্ঠানটির একজন নির্বাহী বলেছেন, কেইরসের ডেটাবেস থেকে তথ্য সংগ্রহের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ব্লুমবার্গ, যা অন্যদের জন্যও উন্মুক্ত।

এছাড়া, জিএইচজিস্যাট অনেক সময় তাদের স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া মিথেন নিঃসরণ তথ্য প্রকাশ করে।

ইউরোপীয়ান স্পেস এজেন্সি, এবং নেদারল্যান্ডস ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ বা এসরন থেকেও নিঃসরণের ফলাফল নিয়ে সাময়িক ডিসক্লোজার পাওয়া যায়।

সামনের দিনগুলোতে তথ্য প্রকাশের ম্যান্ডেট নিয়ে আরও কিছু উৎস তথ্য আবির্ভূত হতে যাচ্ছে, তবে ২০২৩ সালের আগে নয়।

  • কার্বন ম্যাপার নামের একটি মার্কিন অলাভজনক কনসোর্টিয়াম, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার তৈরি প্রযুক্তি এবং নিজস্ব মিথেন-সেন্সিং স্যাটেলাইট থেকে ডেটা ব্যবহার করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে, যা ২০২৩ সালে চালু হওয়ার কথা৷
  • মিথেনস্যাট চালু হওয়ার কথা ২০২২ সালের শরতে এবং এটি এনভায়রনমেন্টাল ডিফেন্স ফান্ডের আর্থিক সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত।
  • ইন্টারন্যাশনাল মিথেন এমিশন্স অবজারভেটরি (আইএমইও) হল ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ইউএন এনভায়রনমেন্টাল প্রোগ্রামের একটি উদ্যোগ, যা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ডেটা, স্যাটেলাইট প্রযুক্তি এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণা ব্যবহার করে নিঃসরণ পর্যবেক্ষণ করবে। 
  • প্রজেক্ট অ্যাস্ট্রা একটি মার্কিন প্রকল্প, যা মাটিতেই সেন্সরের নেটওয়ার্ক বসিয়ে জ্বালানি তেল ও গ্যাস উৎপাদনের এলাকাগুলোতে [মিথেন] নিঃসরণ পর্যবেক্ষণের পরিকল্পনা করছে।
  • বিশ্ব ব্যাংকের গ্লোবাল গ্যাস ফ্লেয়ারিং রিডাকশন পার্টনারশিপের (জিজিএফআর) ২০২১ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গ্লোবাল গ্যাস ফ্লেয়ারিং এক্সপ্লোরার হতে যাচ্ছে “একটি নতুন ও উন্নত ওয়েবভিত্তিক অ্যাপ্লিকেশন, যা বিশ্বব্যাপী ফ্লেয়ারিং (বর্জ্য গ্যাস পোড়ানো) ডেটা সংগ্রহ করবে এবং এই ডেটা ২০২২ সাল সবার জন্য উন্মুক্ত হবে।”

অবশ্য, নিঃসরণের তথ্যের জন্য ছবিই একমাত্র উৎস নয়। এখানে রইল আরও কয়েকটি পরামর্শ:

  • নিয়ন্ত্রক সংস্থায় সংরক্ষিত উন্মুক্ত নথিগুলো সন্ধান করুন,
  • স্থানীয় বিজ্ঞানী ও এনজিওদের সঙ্গে খাতির গড়ে তুলুন, কারণ তারা প্রচুর গবেষণা করে, এবং
  • তেল ও গ্যাস খনি এবং অন্যান্য সম্ভাব্য নিঃসরণ ক্ষেত্রগুলোর কর্মীদের সঙ্গে কথা বলুন।

নিঃসরণ প্রত্যক্ষ করেছেন, এমন সোর্সের কাছে মন্তব্য চাওয়া, সাংবাদিকতার আদর্শ কর্মপ্রক্রিয়ার মধ্যেই পড়ে। তবে প্রত্যুত্তরে যা পাওয়া যায়, তা অসম্পূর্ণ ও ভীতিকর হতে পারে।

দায়িত্বশীলেরা বলতে পারেন, নিঃসরণ একটি বৈধ অথবা স্বাভাবিক সক্রিয় প্রক্রিয়া। এই মন্তব্যগুলো সঠিক হতে পারে, আর তা যাচাই করাও কঠিন। স্থানীয় ও জাতীয় সরকারি নিয়ন্ত্রক সংস্থা এবং তথ্যসমৃদ্ধ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এক্ষেত্রে উপযুক্ত। অন্যান্য সম্ভাবনাময় সোর্সগুলো হলো: অনুসন্ধান যে প্রতিষ্ঠান নিয়ে সেটির নিকটবর্তী বাসিন্দা, প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান বা সাবেক কর্মী, এবং এই খাতের বিশেষজ্ঞরা।

কর্পোরেট নিঃসরণ অনুসন্ধান – এবং প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ

Climate Change Reporting Guide Methane Image Chapter Three

ছবি: জিআইজেএনের জন্য এঁকেছেন মার্সেল লু

অনেক কোম্পানি আছে, যেগুলো তাদের মিথেন নিঃসরণ নিয়ে মোটেও স্বচ্ছ নয়, তবে তাদের ওপর আরও তথ্য প্রকাশ ও নিঃসরণ কমানোর চাপ আছে। এই ক্রমবর্ধমান চাপ সাংবাদিকদের, বিশেষত ব্যবসায় সাংবাদিকদের, আরও প্রশ্ন করার তাগিদ দেয়।

জ্বালানি তেল ও গ্যাস শিল্প, প্রায় এক-তৃতীয়াংশ মিথেন নিঃসরণের জন্য দায়ী। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই খাতের দিকে, তাই মনোযোগ দেওয়া উচিত বেশি। সব না হলেও অনেক প্রতিষ্ঠান নিঃসরণ প্রতিবেদন প্রস্তুত করে, এবং যেভাবে করে, তাতে ফাঁকি দেয়ার যথেষ্ট সুযোগ থাকে।

প্রতিবেদনের ধারণা:

  • প্রধান প্রধান শিল্পখাতের দিকে নজর রাখুন।
  • নিঃসরণের জ্ঞাত বা অনুমিত মাত্রা সম্পর্কে জানতে চান।
  • নির্দিষ্ট নিঃসরণ লক্ষ্য এবং প্রশমনের প্রচেষ্টা সম্পর্কে জানতে চান।

পরিমাপ-পদ্ধতির জটিলতা, অনুসন্ধানের জন্য একরকম বাধার দেয়াল হয়ে দাঁড়ায়, যদিও তা অভেদ্য নয়। এটি ভেদ করার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ করা একাডেমিক ও এনজিও বিশেষজ্ঞ, এবং সম্ভব হলে, কর্পোরেট ওয়াচডগ ও বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে পরামর্শ করা। আর ব্যাখ্যার জন্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাছে জানতে চাওয়া।

মিথেন বিষয়ক কর্পোরেট ডিসক্লোজারগুলো সাধারণত থাকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে, তাদের “সাসটেইনেবিলিটি” প্রতিবেদনে। অভিন্ন ফরম্যাটে, কিছু কর্পোরেট ডিসক্লোজার পাওয়া যায় অলাভজনক সংগঠন সিডিপির সাইটে।

নিঃসরণের আরও একটি উৎস হলো ফ্লেয়ারিং, অর্থ্যাৎ, দাহ্য বর্জ্য গ্যাস পোড়ানো।

বিশ্ব ব্যাংকের জিরো রুটিন ফ্লেয়ারিং ইনিশিয়েটিভ (জেডআরএফ), সরকার ও তেল কোম্পানিগুলোর ফ্লেয়ারিং কার্যক্রমের তালিকা তৈরি করে এবং তা জনসম্মুখে তুলে ধরে। দেশ ও কর্পোরেশনগুলোর নিজস্ব প্রতিবেদনকৃত ফ্লেয়ারিং সংক্রান্ত ডেটা জেডআরএফ ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়।

তেল ও গ্যাস খাতের নিঃসরণ নিয়ে কর্পোরেট প্রতিবেদন আরও উন্নত করতে বেশ কিছু প্রয়াস চলমান আছে।

বিশ্বে জ্বালানি তেল ও গ্যাস উৎপাদনের ৩০% নিয়ন্ত্রণ করে যে ৭৪টি বড় প্রতিষ্ঠান, তারা  অয়েল অ্যান্ড গ্যাস মিথেন পার্টনারশিপ (ওজিএমপি) উদ্যোগের সদস্য। বিভিন্ন জাতিসংঘ সংস্থা ও ইডিএফ এর সঙ্গে জড়িত। এই ডেটা নিয়ে ২০২১ সালের নভেম্বরে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

অয়েল অ্যান্ড গ্যাস ক্লাইমেট ইনিশিয়েটিভ (ওজিসিআই) হলো শিল্পখাতের একটি উদ্যোগ। তারা একটি রিপোর্টিং কাঠামো তৈরি করেছে। আর কয়েকটি তেল ও গ্যাস কোম্পানির সমন্বয়ে গঠিত একটি কনসোর্টিয়াম তৈরি করেছে মিথেন গাইডিং প্রিন্সিপালস, যেখানে উত্তম চর্চাগুলো তুলে ধরা হয়েছে।

কর্পোরেট মিথেন নিঃসরণ নিয়ে প্রতিবেদন করার সময় এই প্রশ্নগুলো বেশ প্রাসঙ্গিক:

  • আপনাদের মিথেন নিঃসরণ মাত্রা কত?
  • এই মাত্রা কি বাড়ছে না কমছে, এবং কতটা?
  • এই মাত্রা কীভাবে হিসাব করা হয়?

যাচাইয়ের বিদ্যমান ব্যবস্থা এমনভাবে সাজানো, যেন নিশ্চিত করা যায় যে কর্পোরেট কার্যক্রম সেই মানদণ্ডগুলো মেনে চলছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য একটি ন্যায়সঙ্গত প্রশ্নের ধরন হলো, তারা এই যাচাই প্রয়াসে যোগ দিবে কি না। এছাড়া মিথেন নিয়ন্ত্রণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রস্তাবিত সরকারী নীতিগুলো সম্পর্কে কোম্পানিগুলোকে তাদের অবস্থান সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা যেতে পারে।

মিথেন নিঃসরণ হ্রাসে অঙ্গীকারবদ্ধ কর্পোরেশনের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। তবে তাদের অঙ্গীকারের বিবরণ খুব একটা স্পষ্ট না-ও হতে পারে; আর তাদের অঙ্গীকার পর্যাপ্ত কিনা, সেটিও একটি বিতর্কের বিষয়।

তাদের অঙ্গীকারের খুঁটিনাটি এবং প্রক্রিয়া সম্পর্কে তথ্য সন্ধান করুন। কিছু পরামর্শ হলো: 

  • প্রতিশ্রুত হ্রাসকরণ লক্ষ্যমাত্রা কখনো কখনো দীর্ঘমেয়াদী হয়ে থাকে, যেমন, ১০ বা ২০ বছর; স্বল্পমেয়াদী ও মধ্যবর্তী লক্ষ্যমাত্রা সম্পর্কে জানতে চান।
  • জানতে চান- পরিকল্পনাটি ঠিক কীভাবে বাস্তবায়ন হবে, যা সব সময় বিস্তারিত বলা থাকে না।
  • নিঃসরণ হ্রাসের পদ্ধতিতে নজর দিন।

সবচেয়ে বেশি নিঃসরণকারী প্রতিষ্ঠান নিয়ে কাজ শুরু করাই সঙ্গত। রাষ্ট্রায়ত্ত বড় পেট্রোলিয়াম কোম্পানিগুলো হতে পারে একটি বিশেষ সম্ভাবনাময় খাত।

মিথেন নিঃসরণ শুধুমাত্র আহরণের জায়গাতেই হয় না। তাই গোটা সাপ্লাই চেইন জুড়েই মনোযোগ দেয়া হচ্ছে।

কৃষি, বিমান পরিবহন, সাগরে নৌ চলাচল এবং অন্যান্য খাত থেকেও মিথেন নিঃসরিত হয়।

Climate Change Reporting Guide - Methane Small 3

ছবি: জিআইজেএনের জন্য এঁকেছেন মার্সেল লু

বিশেষ করে, কৃষি উৎপাদন মিথেনের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস। আরও নির্দিষ্ট করে বললে, চাল উৎপাদন (জলমগ্ন ধান ক্ষেতে ব্যাকটেরিয়া থেকে নিঃসরিত) ও গবাদিপশু প্রতিপালন। শুধু খামার পর্যায়েই নয়, তারা যেসব কোম্পানির কাঁচামাল ব্যবহার করে, সেগুলো কতটা প্রশমন করতে পারে- তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

সমাধান নিয়ে সর্বশেষ গবেষণার অনুসরণ করাও মিথেন নিয়ে সাংবাদিকতার একটি জরুরী অনুষঙ্গ। এখন নতুন নতুন ধ্যান-ধারণা নিয়ে দ্রুত গতিতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। বিজ্ঞানকে অনুসরণের মাধ্যমেই সময়োপযোগী প্রশ্ন তোলা সম্ভব হবে।

মিথেন নিঃসরণের জন্য দেশগুলোকে জবাবদিহি করা 

২০২১ সালের নভেম্বরে স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন সম্মেলন (সিওপি২৬) সামনে রেখে অনেক দেশ মিথেন নিঃসরণ কমানোর অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছে।

প্রতিবেদনের ধারণা:

  • কীভাবে ও কেন জাতীয় হ্রাস লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছিল?
  • কীভাবে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং যাচাই করা হবে? 

নিঃসরণের অঙ্গীকার নিয়ে বিভিন্ন দেশের সরকার যেসব তথ্য জমা দেয়, সেগুলো পাওয়া যায় জাতিসংঘের ন্যাশনালি ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন (এনডিসি) রিপোর্টে। এই এনডিসিগুলো প্রকাশিত হয় জাতিসংঘের এনডিসি রেজিস্ট্রি-তে। এসব এনডিসি সমন্বিত করে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে ইউএনএফসিসিসি। (এখানে অক্টোবর ২০২১ সংস্করণ দেখুন।)

বেশ কয়েকটি দেশ এই রিপোর্টে জাতীয় নিঃসরণ ডেটা প্রকাশ করে।

গ্লোবাল মিথেন প্লেজের ১১১ সাক্ষরকারী ২০২০ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে নিঃসরণ ৩০% কমানোর বৈশ্বিক লক্ষ্যমাত্রায় একমত হয়েছে। তবে, এই অঙ্গীকারে সই করা মানে এই নয় যে দেশগুলো নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বাধ্য।

এই পরিকল্পনা নিয়ে সমালোচনার সম্ভাব্য সেরা সোর্স স্থানীয়/আঞ্চলিক পরিবেশবাদী দল, বিজ্ঞানী, ব্যবসায়ী সংগঠন, এবং রাজনৈতিক কর্মী।

নিঃসরণ পরিমাপ একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচনা বিন্দু, তাই সাংবাদিকেরাও নিঃসরণ প্রাক্বলনের পদ্ধতিটি খতিয়ে দেখতে পারেন।

প্রদেশ ও শহরের মতো উপ-জাতীয় বিচার ব্যবস্থাও নেট-জিরো (শূণ্য নিঃসরণ) অঙ্গীকার ব্যক্ত করছে।

প্রাক্তন রিপোর্টার ও ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ডের গ্রাজুয়েট স্কুল অব জার্নালিজমের বর্তমান পরিচালক রাফায়েল লোরেনটি বলেন, “নিঃসন্দেহে মিথেন গ্যাস নিঃসরণ একটি বড় সমস্যা, যা আমাদের পৃথিবীর এই কঠিন সময়ে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যাকে আরও জটিল করে তুলছে। সাংবাদিকদের সমস্যা হলো, এই স্টোরিকে আরও প্রাণবন্ত করে তোলা।”

আরও পড়ুন

ক্লাইমেট চেঞ্জ: জিআইজেএন’স গাইড টু ইনভেস্টিগেটিং মিথেন (ফুল গাইড)

নিউ ডেটা টুলস অ্যান্ড টিপস ফর ইনভেস্টিগেটিং ক্লাইমেট চেঞ্জ

জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশগত অপরাধ অনুসন্ধান


টবি ম্যাকিনটোশ জিআইজেএন রিসোর্স সেন্টারের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা। তিনি ওয়াশিংটনে ব্লুমবার্গ বিএনএ-র সঙ্গে ৩৯ বছর কাজ করেছেন। ফ্রিডমইনফো ডট ওআরজি (২০১০-২০১৭) এর সাবেক এই সম্পাদক, বিশ্বব্যাপী এফওআই নীতিমালা সম্পর্কে লিখেছেন এবং তথ্য অধিকার সমর্থকদের আর্ন্তজাতিক নেটওয়ার্ক, ফোয়ানেটের স্টিয়ারিং কমিটিতে কাজ করেন।

ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের অধীনে আমাদের লেখা বিনামূল্যে অনলাইন বা প্রিন্টে প্রকাশযোগ্য

লেখাটি পুনঃপ্রকাশ করুন


Material from GIJN’s website is generally available for republication under a Creative Commons Attribution-NonCommercial 4.0 International license. Images usually are published under a different license, so we advise you to use alternatives or contact us regarding permission. Here are our full terms for republication. You must credit the author, link to the original story, and name GIJN as the first publisher. For any queries or to send us a courtesy republication note, write to hello@gijn.org.

পরবর্তী

পরামর্শ ও টুল

ত্রুটিপূর্ণ ও ভুয়া একাডেমিক গবেষণা নিয়ে কীভাবে কাজ করবেন

একাডেমিক গবেষণাপত্রের ওপর ভিত্তি করে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, জলবায়ু পরিবর্তন ইত্যাদি বিষয়ে নেওয়া হয় গুরুত্বপূর্ণ সব সিদ্ধান্ত। ফলে ত্রুটিপূর্ণ ও ভুয়া গবেষণা অনেক সময় তৈরি করতে পারে নেতিবাচক প্রভাব। পড়ুন, কীভাবে এমন ত্রুটিপূর্ণ গবেষণা নিয়ে অনুসন্ধান করতে পারেন।

গাইড পরামর্শ ও টুল

প্রতিবন্ধীদের নিয়ে অনুসন্ধানের রিপোর্টিং গাইড: সংক্ষিপ্ত সংস্করণ

জাতিসংঘের মতে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা হচ্ছেন বৃহত্তম বিভক্ত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী। কার্যত প্রতিটি রিপোর্টিং বীটেই প্রতিবন্ধী বিষয়ক দৃষ্টিকোণ থেকে আলোচনা বা কাজ করার সুযোগ রয়েছে।

Using Social Network Analysis for Investigations YouTube Image GIJC23

পরামর্শ ও টুল

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় শক্তিশালী টুল সোশ্যাল নেটওয়ার্ক অ্যানালাইসিস

ডেটা-চালিত সাংবাদিকতার যুগে, বিভিন্ন বিষয়কে একসঙ্গে যুক্ত করার মাধ্যমে যুগান্তকারী সব তথ্য উন্মোচন করা সম্ভব। সোশ্যাল নেটওয়ার্ক অ্যানালাইসিস (এসএনএ) ঠিক এমন একটি কৌশল, যা ব্যবহার করে অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরা ঠিক এ কাজটিই করতে পারেন।

পরামর্শ ও টুল

বৈশ্বিক সহযোগিতা ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা: অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার ভবিষ্যৎ গতিপথ 

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও আন্তঃসীমান্ত সহযোগিতার সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং এ সংক্রান্ত ভুলভ্রান্তি এড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিন অভিজ্ঞ সাংবাদিক।