প্রবেশগম্যতা সেটিংস

রিসোর্স

বিষয়

বিশ্বব্যাপী মার্কিন প্রভাব অনুসন্ধানের টিপশিট

আর্টিকেলটি পড়ুন এই ভাষায়:

English

যুক্তরাষ্ট্র সরকার কার্যত বিশ্বের প্রতিটি দেশের সঙ্গে কোনো না কোনোভাবে জড়িত। কংগ্রেস ও প্রেসিডেন্টের উদ্যোগ, জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের অপরাধ অনুসন্ধান, বিদেশি সহায়তা, সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে আর্থিক সংযোগ, অন্যান্য দেশের সঙ্গে ফেডারেল চুক্তি, এবং অস্ত্র বিক্রি ও বিতরণের মতো বিভিন্ন বিষয় এর মধ্যে থাকতে পারে। নিচের এই টুলগুলো যুক্তরাষ্ট্রের বাইরের সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে যেন তাঁরা বুঝতে পারেন, তাঁদের দেশে এসবের কী প্রভাব পড়ে। উন্মুক্ত কিছু ডেটাবেসের সাহায্যে এসব কর্মকাণ্ড একটি নির্দিষ্ট পর্যায় পর্যন্ত সনাক্ত করা যায়। 

এই তালিকায় যেসব রিসোর্স আছে, তাদের কয়েকটি ব্যবহারের জন্য অর্থ খরচ করতে হবে। তবে বেশিরভাগই ফ্রি। কখনো কখনো সাংবাদিকেরা জানতে চান, এই সাইটগুলো দেখা বৈধ কি না। উত্তরঃ একদম বৈধ। এই ওয়েবসাইটগুলোতে প্রচুর স্টোরি আছে, তাই সেগুলো দেখুন ও ব্যবহার করুন৷

রাজনীতি ও অর্থ

২০২১ সালে,  উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড ও ত্রাণের পেছনে শুধু বিদেশি সহায়তা বাবদ প্রায় ৩৮ বিলিয়ন ডলার খরচ করেছে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। এই সাহায্য হতে পারে রাজনৈতিক, কৌশলগত বা অর্থনৈতিক। সামরিক ব্যয়ের বিষয়টি আলাদা (এ বিষয়ে পরে আসছি)। বেশিরভাগ বৈদেশিক সহায়তার অর্থ মূলত যায় মার্কিনী (ও বিদেশী) ঠিকাদারদের পকেটে, যারা বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচি পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত থাকেন। এই ব্যয়ের পেছনে কংগ্রেস ও হোয়াইট হাউসের অনেক প্রভাব রয়েছে, তবে নির্দিষ্ট বিষয়ে সমর্থন পেতে বিভিন্ন দেশও যুক্তরাষ্ট্রের কাছে লবিং করে। এবং এই সব কিছুই সনাক্ত করা যায়।  

প্রশ্ন: মার্কিন সরকার আমার দেশে কী খরচ করছে?

রিসোর্স: ফরেন অ্যাসিসটেন্স। এই ডেটাবেসে আপনি দেশ ও বছর ধরে সার্চ করতে পারেন, এমনকি এখানকার তথ্যগুলো সাংবাদিকেরা স্প্রেডশিট আকারে ডাউনলোডও করতে পারেন। এছাড়াও আপনি নিচের এসব মানদণ্ড ব্যবহার করেও তথ্য খুঁজতে পারবেন: 

  • দায়: কংগ্রেস যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় করতে সম্মত হয়েছে। 
  • বিতরণ: বাস্তবে যে পরিমাণ অর্থ বিতরণ করা হয়েছে। 
  • প্রেসিডেন্টের বাজেট অনুরোধ: প্রেসিডেন্ট, কংগ্রেসকে যে তহবিল অনুমোদন করতে বলেছেন।
  • বরাদ্দকৃত ও পরিকল্পিত: কংগ্রেস যে তহবিল বরাদ্দ করেছে, এটি দায়ের পথে প্রথম পদক্ষেপ।

প্রশ্ন: আমার দেশে মার্কিন সরকারের কী কী (ক্রয়) চুক্তি আছে?

রিসোর্স: ইউএসএ স্পেন্ডিং। এই সাইটটির অ্যাডভান্সড সার্চ সক্ষমতা আছে এবং রিপোর্টাররা দেশ ও অর্থবছর ছাড়াও আরও বেশ কিছু বিষয় ধরে তথ্যের খোঁজ করতে পারেন। 

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: ইউএসএ স্পেন্ডিং → অ্যাওয়ার্ড সার্চ → অ্যাডভান্সড সার্চ → ফিসক্যাল ইয়ার → লোকেশন কান্ট্রি → অ্যাড ফিল্টার→ সার্চ।

প্রশ্ন: আমার দেশে কে কোন ইস্যুতে মার্কিন রাজনীতিকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে?

রিসোর্স: এফএআরএ ইফাইল। বিদেশি স্বার্থের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করা ব্যক্তিদের নির্দিষ্ট সময় পর পর জনসম্মুখে তথ্য প্রকাশে বাধ্য করে ফরেন এজেন্টস রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্ট (এফএআরএ)। এই সাইটে আপনি দেশ বা স্থান ধরে ধরে দেখতে পারবেন যে এজাতীয় লবিংয়ের সাথে কোন কোন দেশ যুক্ত। এবং তারা এই কাজের জন্য কোন কোন লবিং ফার্ম ও লবিস্ট নিয়োগ দিয়েছে – যাদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সাবেক কর্মকর্তারাও থাকেন। 

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: এফএআরএ ইফাইল → ব্রাউজ ফাইলিং → অ্যাক্টিভ রেজিস্ট্রেন্ট বাই কান্ট্রি অর লোকেশন রিপ্রেজেন্টেড→ কান্ট্রি/লোকেশন → ভিউ → ভিউ ডকুমেন্ট।

ছবি: শাটারস্টক

প্রশ্ন: আমার দেশের সরকার বা কোম্পানির পক্ষ থেকে কে কোন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রে লবিং করছে?

রিসোর্স: লবিং ডিসক্লোজার। লবিং ডিসক্লোজার অ্যাক্ট, যুক্তরাষ্ট্রে অভ্যন্তরীণ লবিস্টদের জন্য মান নির্ধারণ করে। এই ডেটাবেসে বিদেশি সংস্থা ও তাদের প্রতিনিধিদের নিবন্ধন সংক্রান্ত তথ্য এবং ত্রৈমাসিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবেদন আছে।

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: লবিং ডিসক্লোজার → রেজিস্ট্রেশন অ্যান্ড কোয়ার্টারলি অ্যাক্টিভিটি রিপোর্ট → ফরেন এনটিটিজ → কান্ট্রি → সার্চ রিপোর্টস → ভিউ৷

প্রশ্ন: যুক্তরাষ্ট্রের কোন কোন আইনপ্রণেতা রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে আমার দেশে এসেছেন? কখন এবং কেন?

রিসোর্স: কংগ্রেস ডট গভ। এই সাইট মার্কিন সরকারি এজেন্টদের বা কংগ্রেসের সদস্যদের সরকারিভাবে বিদেশ ভ্রমণের তথ্য নথিভুক্ত করে, দেশ অনুযায়ী।

সাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: কংগ্রেস ডট গভ → সার্চ বাই সোর্স → কংগ্রেশনাল রেকর্ড → “অফিশিয়াল ফরেন ট্রাভেল” অ্যান্ড কান্ট্রি নেম৷

প্রশ্ন: আলোচনা পর্যায়ে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের কোন কোন বিল আমার দেশে প্রভাব ফেলতে পারে?

রিসোর্স: কংগ্রেস ডট গভ। আইন হিসেবে পাসের অপেক্ষায় থাকা সব কেন্দ্রীয় আইন এই ডেটাবেসে আছে। বিদেশি সাংবাদিকেরা প্রস্তাবিত এই আইনগুলোর মধ্যে টেক্সট সার্চ করে দেখতে পারেন যে, সেখানে তার দেশ সম্পর্কে বা অন্যান্য প্রাসঙ্গিক কোনো বিষয় সম্পর্কে উল্লেখ আছে কিনা। 

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: কংগ্রেস ডট গভ → সার্চ কান্ট্রি → চেক লেজিসলেশন।

প্রশ্ন: মার্কিন সরকার আমার দেশে কী কাজ করার পরিকল্পনা করছে?

রিসোর্স: স্যাম ডট গভ। এই ডেটাবেসে যে কোনো দেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সব সরকারি চুক্তি বিষয়ে তথ্য আছে এবং এটি আপনাকে ফেডারেল প্রকিউরমেন্ট ডেটা সিস্টেম থেকে তথ্য খোঁজার সুযোগ দেয়।

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: স্যাম ডট গভ → সার্চ → কান্ট্রি।

প্রশ্ন: আমার দেশে কর্মরত মার্কিন কর্মকর্তা ও তাদের স্ত্রীদের (যেমন রাষ্ট্রদূত বা ইউএসএইডের পরিচালক) আর্থিক সম্পদ কী আছে?

রিসোর্স: অফিস অব গভর্নমেন্ট এথিক্স। এই ডেটাবেসে নীতি নৈতিকতা বিষয়ক নথি, ফাইন্যান্সিয়াল ডিসক্লোজার রিপোর্ট (ওজিই ফর্ম ২০১), প্রেসিডেন্টের নিয়োগকারী ও মনোনীতদের রেকর্ড, এবং দেশের ওপর ভিত্তি করে আরও অনেক কিছু আছে।

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: অফিস অফ গভর্নমেন্ট এথিক্স → অ্যাকসেস এথিক্স ডকুমেন্টস → ভিউ অফিসিয়াল’স ইন্ডিভিজুয়াল ডিসক্লোজার → ব্যানারে ক্লিক করুন → টাইটেল → কান্ট্রি।

প্রশ্ন: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কী কী রপ্তানি বিধিনিষেধ ও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে?

রিসোর্স: কনসোলিডেটেড স্ক্রিনিং লিস্ট। এই সরকারি সার্চ ইঞ্জিনটি ইউএস ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের অংশ এবং এখানে আপনি বেশ কয়েকটি সরকারি কেবিনেট-এজেন্সির নাম, দেশ ও উৎস ধরে খোঁজ করতে পারবেন।

অভিবাসন

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্য অ্যারিজোনায় যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্ত দেয়াল। রিপোর্টাররা বিভিন্ন ডেটাবেসে খোঁজ চালিয়ে জানতে পারেন, কোন কোন জাতীয়তার বিদেশী নাগরিককে অভিবাসন আটককেন্দ্রে রাখা হয়েছে।  ছবি: শাটারস্টক

যুক্তরাষ্ট্রে আসা প্রায় সবাইকেই কোনো না কোনো প্রকার ভিসা পেতে হয়, সেটি হতে পারে স্বল্পমেয়াদে পর্যটক হিসেবে, অথবা কাজ, শিক্ষার সুযোগ বা নাগরিকত্বের জন্য। তবে মার্কিন অভিবাসন ব্যবস্থা স্বচ্ছ নয়, আর যে আইনের অধীনে এই অভিবাসন ব্যবস্থা পরিচালিত হয়, সেই ফেডারেল আইন সেকেলে। ফেডারেল ইমিগ্রেশন ব্যবস্থার নিজস্ব আদালত ও আটক রাখার ব্যবস্থাও আছে, যা মার্কিন ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থা থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। প্রতিটি দেশের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নির্দিষ্ট নিয়ম ও বিধিমালা আছে এবং একটি থেকে অন্যটি অনেকটাই ভিন্ন। যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী ও বিদেশী পর্যটকদের এমন অবস্থা নিয়ে অনুসন্ধান করা বেশ সহজ; সেই সাংবাদিক যদি নিজে যুক্তরাষ্ট্রে আসতে নাও পারেন, তবুও। এখানে রইল এই কাজে সহায়ক কিছু টুলের খবর: 

প্রশ্ন: বর্তমানে আমার দেশের কতজন মানুষ যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন আটককেন্দ্রে বন্দী আছে, এবং তাদের কোথায় রাখা হয়েছে?

রিসোর্স: ট্রানজ্যাকশনাল রেকর্ডস অ্যাক্সেস ক্লিয়ারিংহাউস (টিআরএসি)। সিরাকিউজ ইউনিভার্সিটি পরিচালিত এই ডেটাবেসে আটক থাকা বন্দীদের সম্পর্কে নাগরিকত্ব ও দেশ ভিত্তিক প্রচুর তথ্য আছে।

ওয়েবসাইটটি নেভিগেট করুন এভাবে: টিআরএসি → অল ইমিগ্রেশন টুলস → আইসিই ডিটেইনারস, লেটেস্ট ডেটা → পুল ডাউন: সিটিজেনশিপ → কান্ট্রি নেম।

প্রশ্ন: এ বছর আমার দেশ থেকে যাওয়া কতজনকে অভিবাসন আদালতের মাধ্যমে দেশত্যাগের আদেশ দেওয়া হয়েছে, বা যুক্তরাষ্ট্রে থেকে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে?

রিসোর্স: ট্র্যাক ইমিগ্রেশন। (উপরে উল্লিখিত) ডেটাবেসের এই সাব-সাইটটি মূলত তুলে ধরে বিভিন্ন অভিবাসন-সম্পর্কিত ইস্যু, যেখানে জাতীয়তার ভিত্তিতে সাজানো আছে অভিবাসন আদালতের রায় ও ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্তগুলো। 

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: ট্র‌্যাক → ইমিগ্রেশন → অল ইমিগ্রেশন টুলস → ইমিগ্রেশন কোর্ট ডিসিশনস টুল → স্টার্টিং উইথ: ন্যাশনালিটিস → কান্ট্রি নেম।

প্রশ্ন: আমার দেশের মানুষগুলো কোথায় কাজ করছে? যুক্তরাষ্ট্রে ভিসা/গ্রিন কার্ড সম্পর্কে আমি কীভাবে জানতে পারি?

রিসোর্স: মাইভিসাজবস। এই সাইটে আপনি দেশের নাগরিকত্ব অনুসারে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ার্ক ভিসাপ্রাপ্ত বিদেশীদের খুঁজতে পারবেন। 

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: মাইভিসাজবস → গ্রিন কার্ড → কান্ট্রি অব সিটিজেনশিপ।

প্রশ্ন: আমার ধারণা, আমার দেশের কাউকে মার্কিন অভিবাসন কর্তৃপক্ষ আটক করেছে। আমি কীভাবে তাদের খুঁজে পেতে পারি?

রিসোর্স: আইস লোকেটর। এই সাইটে আপনি এ-নম্বর (এলিয়েন রেজিস্ট্রেশন নম্বর), জন্মস্থল বা জীবনী সংক্রান্ত তথ্য ব্যবহার করে আটক অভিবাসীদের খুঁজতে পারেন।

সামরিক শক্তি

ছবি: শাটারস্টক

যুক্তরাষ্ট্রের ডিপার্টমেন্ট অফ ডিফেন্স (ডিওডি) বিশ্বব্যাপী বিদেশি সামরিক বাহিনীদের প্রশিক্ষণ দেয় ও অস্ত্র সরবরাহ করে। নিচের সাইটগুলো ঘেঁটে জানা সম্ভব যে, কোন সামরিক ইউনিট যুক্তরাষ্ট্রের প্রশিক্ষণ পেয়েছে এবং আরও সুনির্দিষ্টভাবে, সেই প্রশিক্ষণ কী ছিল। আরও জানা যায় যে যুক্তরাষ্ট্র থেকে অন্য দেশে কী ধরনের অস্ত্র ব্যবস্থা বা পারমাণবিক প্রযুক্তি পাঠানো হয়েছে।

প্রশ্ন: আমার দেশের কি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে উন্নত প্রযুক্তি আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত বাণিজ্য আছে? 

রিসোর্স: ইউএস সেনসাস অ্যাডভান্সড টেকনোলজি প্রোডাক্ট ডেটা। ইউএস সেনসাসের এই সাব-সাইটে আপনি পাবেন পারমাণবিক প্রযুক্তিসহ বেশ কয়েকটি ক্যাটাগরিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বৈদেশিক বাণিজ্য — আমদানি ও রপ্তানির মাসভিত্তিক তথ্য।

সাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: ইউএস সেনসাস অ্যাডভান্সড টেকনোলজি ডেটা → (১০) নিউক্লিয়ার টেকনোলজি → সার্চ লিস্ট ফর কান্ট্রি নেম।

প্রশ্ন: আমার দেশ যুক্তরাষ্ট্র থেকে কী কী সামরিক প্রশিক্ষণ ও সরঞ্জাম পেয়েছে?

রিসোর্স: ফরেন মিলিটারি ট্রেনিং অ্যান্ড ডিওডি এনগেজমেন্ট অ্যাক্টিভিটিস অব ইন্টারেস্ট। নোট: এখানে ডিওডি ওয়েবসাইটের মাত্র ছয় বছরের ডেটা পাওয়া যায়। 

প্রশ্ন: আমার দেশে সামরিক সরঞ্জামাদি বিক্রয় ও প্রশিক্ষণ খাতে যুক্তরাষ্ট্র কী পরিমাণ অর্থ ব্যয় করেছে?

রিসোর্স: ডিএসসিএ হিস্টোরিকাল ফ্যাক্টস বুক অ্যান্ড ফিসকাল ইয়ার সিরিজ। হিস্টোরিক্যাল সেলস বুকে (এইচএসবি) ১৯৫০ থেকে ২০২১ অর্থবছর পর্যন্ত দেশভিত্তিক মার্কিন সামরিক সরঞ্জাম বিক্রয়ের তালিকা পাওয়া যায়।

প্রশ্ন: যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমার দেশে কী ধরনের অস্ত্র ব্যবস্থা ও সহায়তা পাঠানো হয়েছে? 

রিসোর্স: এক্সেস ডিফেন্স আর্টিকেলস ডেটাবেস টুল। এই সাইটের তথ্যের মধ্যে থাকে গ্রহীতা দেশের নাম, সরঞ্জাম বা উপকরণ, প্রতিটির পরিমাণ, বাজার মূল্য এবং সামরিক সরঞ্জাম হস্তান্তর (বিক্রয়) প্রক্রিয়া। 

ব্যবসা-বাণিজ্য

ছবি: শাটারস্টক

বৈশ্বিক বাণিজ্যের আজকের দুনিয়ায়, কখনো কখনো একজন সাংবাদিক মার্কিন রেকর্ড সার্চ করেও নিজ দেশের কোনো কোম্পানি সম্পর্কে জেনে ফেলতে পারেন। বিশ্বজুড়ে সক্রিয় যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অলাভজনক সংস্থাগুলোর কর নথিও দেখা সম্ভব, এমনকি সংস্থার নির্বাহীরা কত বেতন পান– সেই তথ্যও জানা সম্ভব। সবশেষে, আপনার নিজ দেশ, বা অনুন্নত বিশ্বের কোনো দেশে শ্রম নিপীড়ন এবং সেই অপচর্চার সঙ্গে পশ্চিমা বিশ্বের তাকগুলোতে জায়গা করে নেয়া পণ্যের যে যোগসূত্র, তা নিয়ে অনুসন্ধানের শুরুটা হয় আমদানি-রপ্তানি ট্র্যাক করার মাধ্যমে। 

প্রশ্ন: কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানির কর্মকর্তা কারা এবং সেই কোম্পানির জন্য কী কী নথি দাখিল করা হয়েছে?

রিসোর্স: ওপেন কর্পোরেটস

প্রশ্ন: যুক্তরাষ্ট্রের কোন পাবলিক কোম্পানিগুলো আমার দেশে বিনিয়োগ করেছে বা কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে? 

রিসোর্স: সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন। এই ডেটাবেসে আপনি কোম্পানির নাম ও দেশ ধরে সার্চ করে সর্বোচ্চ চার বছর আগের নথির সম্পূর্ণ টেক্সট এবং অন্যান্য তথ্য পাবেন।

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন → সার্চ ফর কোম্পানি ফাইলিংস → ফুল টেক্সট পাস্ট ফোর ইয়ারস → কান্ট্রি নেম।

প্রশ্ন: আমি কীভাবে যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক বেসরকারি সংস্থা বা অলাভজনক সংস্থার বেতন, অনুদান এবং ব্যয় সহ আর্থিক রেকর্ড দেখব?

রিসোর্স: ক্যান্ডিড (গাইডস্টার)। এই সাইটের ফ্রি-সংস্করণে আপনি প্রতিষ্ঠানের নাম দিয়ে সার্চ করে তাদের আইআরএস ফর্ম ৯৯০-তে প্রবেশাধিকার পেতে পারেন, যেখানে আপনি প্রতিষ্ঠানটির দাতা/গ্রাহক, কর্মকাণ্ড এবং কর্মী ও পরিচালকদের বেতনভাতাসহ অনেক বিস্তারিত আর্থিক বিবরণী পাবেন। নোট: প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান অবস্থা এবং এই ফর্মগুলো সবার জন্য উন্মুক্ত হওয়ার মধ্যে সময়ের ব্যবধান থাকে। ফলে সেখানকার সবচেয়ে সাম্প্রতিক ৯৯০ ডেটাও বেশ কয়েক বছর পুরানো হতে পারে৷

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: গাইডস্টার → এনজিও নেম → ফাইন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং → ফর্ম ৯৯০।

প্রশ্ন: আমার দেশের কোন কোন কোম্পানি যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করে — এবং তারা কোন পণ্য বা সেবা বিক্রি করছে?

রিসোর্স: পাঞ্জিভা এবং ইম্পোর্টজিনিয়াস। এই সাইটগুলোতে আপনি দেশের নাম দিয়ে আমদানি (যুক্তরাষ্ট্র) ও রপ্তানি সংক্রান্ত তথ্য সার্চ করতে পারেন৷

ব্যবসা এবং কর্পোরেশন অনুসন্ধানের আরও টিপস ও টুলের জন্য দেখুন: জিআইজেএনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও তার মালিকদের নিয়ে অনুসন্ধানের গাইড

ফৌজদারি বিচার

যুক্তরাষ্ট্রের আদালত সংক্রান্ত নথিপত্রের মধ্যে আবিষ্কার করার মতো অনেক স্টোরি আছে, যেগুলো সবার জন্য উন্মুক্ত অবস্থায় থাকে এবং বিনামূল্যে বা সামান্য অর্থ খরচ করেই পাওয়া যায়। যুক্তরাষ্ট্রে বিচারাধীন অন্যান্য দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে মামলা সংক্রান্ত তথ্য খুঁজে পাওয়া সম্ভব। বিদেশী নাগরিকেরা মার্কিন হেফাজতে থাকলে ই-মেইল আদান প্রদান বা সাক্ষাতের সময়সূচী ঠিকও করা সম্ভব।

প্রশ্ন: আমার দেশ থেকে কারা যুক্তরাষ্ট্রে কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে বিচারের মুখোমুখি হচ্ছে এবং কেন?

রিসোর্স: ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস। যে দেশ নিয়ে কাজ করছেন, সেই দেশের কোনো উল্লেখ আছে কিনা, তা খুঁজে পেতে ডিওজে সাইটের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিগুলোতে সার্চ করুন।

প্রশ্ন: আমি কীভাবে আদালতের নির্দিষ্ট ফাইল দেখতে পারি?

রিসোর্স: পাবলিক এক্সেস টু কোর্ট ইলেক্ট্রনিক রেকর্ডস (পেসার)

পেসার এভাবে নেভিগেট করুন: পেসার → ফাইন্ড এ কেস → নেম → ডকেট রিপোর্ট

কোর্ট লিসেনার এভাবে নেভিগেট করুন: রিক্যাপ আর্কাইভ

প্রশ্ন: আমি কীভাবে যুক্তরাষ্ট্রে আটক বিদেশী নাগরিকদের সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা করতে পারি এবং তা নিয়ে লিখতে পারি? 

রিসোর্স: ব্যুরো অফ প্রিজনস ইনমেট লোকেটর। চারটি সনাক্তকরণ পদ্ধতির যে কোনো একটি ব্যবহার করে (খুব সম্ভব, বিদেশিদের জন্য একটি “আইএনএস নম্বর”) বা তাদের পুরো নাম (বয়স, জাতি এবং লিঙ্গ এখানে বাড়তি ইনপুট) দিয়ে কারাবন্দী ব্যক্তিকে খুঁজুন। সাক্ষাৎকারের জন্য কারা পরিদর্শনের পরিকল্পনা থাকলে কারারক্ষীর সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং সংবাদ মাধ্যমের জন্য নির্ধারিত ফর্ম পূরণ করুন।

ওয়েবসাইটটি এভাবে নেভিগেট করুন: ফেডারেল ব্যুরো অফ প্রিজন → ইনমেটস → ফাইন্ড অ্যান ইনমেট → আস্ক দেম টু ফিল আউট দ্য রিকোয়েস্ট ফর ভিজিটরস ফর্ম।

পররাষ্ট্র নীতি

সাম্প্রতিক সময়ের কূটনৈতিক ও পররাষ্ট্র নীতির ইতিহাস এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নিয়ে স্টোরির জন্য এই সাইটগুলো দারুণ রিসোর্স। এখানে অন্যান্য দেশের জন্য প্রাসঙ্গিক না বলা অনেক স্টোরি থাকতে পারে।

প্রশ্ন: যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়/সিআইএ-র কর্মকাণ্ড সংক্রান্ত রেকর্ডগুলো কোথায় আছে? 

রিসোর্স: অ্যাক্সেস টু আর্কাইভাল ডেটাবেসেস (এএডি)। ন্যাশনাল আর্কাইভে ১৯৭০-এর দশক পর্যন্ত পুরোনো রেকর্ড পাওয়া যায়। এছাড়াও, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভার্চুয়াল রিডিং রুমে পররাষ্ট্রনীতি সংক্রান্ত অনেক নথিপত্র পাওয়া যায়, যেগুলো সেখানে উন্মুক্ত করা হয়েছে তথ্য অধিকার আইনের আওতায় তথ্যের অনুরোধ আসার কারণে। যুক্তরাষ্ট্রের ঐতিহাসিক সংশ্লিষ্টতা এবং বর্হিবিশ্বে এর কর্মকাণ্ড নিয়ে গবেষণার জন্য সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (সিআইএ) একটি এফওআইএ রিডিং রুম পরিচালনা করে

আরও পড়ুন

রাশিয়া নিয়ে অনুসন্ধান: জিআইজেএনের তাৎক্ষণিক টুলকিট

কোভিড-১৯ সরঞ্জামের সরবরাহ চেইন অনুসন্ধানে যেসব টুল ব্যবহার করেন মার্থা মেনডোজা

৬ টিপস হোয়েন ইনভেস্টিগেশন লিড টু চায়না


মার্থা মেনডোজা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের দু’বারের পুলিৎজারজয়ী অনুসন্ধানী রিপোর্টার। বর্তমানে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার সিলিকন ভ্যালি থেকে ব্রেকিং স্টোরি, এন্টারপ্রাইজ এবং অনুসন্ধানী স্টোরি করেন। তিনি এপির সেই অনুসন্ধানী দলের অংশ ছিলেন, যাঁরা ২০১৫ সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মাছ ধরার খাতে বলপূর্বক শ্রমের বিষয়টি উন্মোচন করেছিলেন। এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর মুক্তি পেয়েছিলেন ‍দুই হাজার দাস। 

ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের অধীনে আমাদের লেখা বিনামূল্যে অনলাইন বা প্রিন্টে প্রকাশযোগ্য

লেখাটি পুনঃপ্রকাশ করুন


Material from GIJN’s website is generally available for republication under a Creative Commons Attribution-NonCommercial 4.0 International license. Images usually are published under a different license, so we advise you to use alternatives or contact us regarding permission. Here are our full terms for republication. You must credit the author, link to the original story, and name GIJN as the first publisher. For any queries or to send us a courtesy republication note, write to hello@gijn.org.

পরবর্তী

টিপশীট জলবায়ু পরামর্শ ও টুল

সরকারের জলবায়ু অঙ্গীকার নিয়ে যেভাবে জবাবদিহি আদায় করবেন

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক ‍উদ্যোগের কেন্দ্রে রয়েছে বিভিন্ন দেশের করা জাতীয় অঙ্গীকার। আপনার দেশের সরকার কী ধরনের ঐচ্ছিক অঙ্গীকার করেছে? সেখানে উল্লেখ করা প্রতিশ্রুতিগুলো কি তারা রক্ষা করছে? এসব প্রশ্ন ধরে অনুসন্ধান এবং সরকারকে জবাবদিহি করার গুরুত্বপূর্ণ কিছু উপায়-কৌশল ও রিসোর্সের খোঁজ পাবেন এই লেখায়।

Aerial image of luxury villas in France

পদ্ধতি পরামর্শ ও টুল

ফ্রান্সসহ নানা দেশে জমি ও বাড়ি বেচাকেনা যেভাবে অনুসন্ধান করবেন

নিজ দেশে দুর্নীতি-অনিয়মের মাধ্যমে অর্থ পাচার করে অনেকেই জমি বা স্থাবর সম্পত্তি কেনেন ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। অনেক ক্ষেত্রেই এসব অর্থের উৎস ব্যাখ্যা করা যায় না। এবং সেগুলো হতে পারে বড় ধরনের দুর্নীতির ইঙ্গিত। এই লেখায় ধাপে ধাপে বর্ণনা করা হয়েছে বিদেশে এমন জমি ও বাড়ি কেনাবেচা নিয়ে অনুসন্ধানের কৌশল।

পরামর্শ ও টুল

জিআইজেএন বুকশেলফ: ২০২১ সালে পড়ার মতো অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার এক ডজন বই

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এমনিতেই পরিশ্রমের কাজ। সাথে নানা রকম টেনশন। আর কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়া মগজটাকে বিশ্রাম দিতে আমরা অনেকেই আশ্রয় নিই বই পড়ায়। ভাবছেন কী পড়বেন? জিআইজেএন বুকশেলফ থেকে এখানে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার এক ডজন বইয়ের একটি তালিকা দেয়া হলো, যা ২০২১ সালজুড়ে আপনার বই পড়ার অভ্যাসকে চাঙ্গা রাখবে। 

করোনাভাইরাস

পরামর্শ ও টুল

নতুন করোনাভাইরাস: খবর সংগ্রহ, রিপোর্ট তৈরি ও প্রকাশে যত রকম সতর্কতা দরকার

করোনভাইরাস নিয়ে প্রকৃত তথ্যের চেয়ে আতঙ্কই ছড়াচ্ছে বেশি। আছে ভুয়া তথ্যের ছড়াছড়িও। এই পরিস্থিতিতে সাংবাদিকদের পালন করতে হবে দায়িত্বশীল ভূমিকা। কিভাবে আতঙ্ক না ছড়িয়ে দায়িত্বশীলতার সাথে মানুষের কাছে সঠিক খবরটি পৌঁছে দেবেন সাংবাদিকরা? কোথায় পাবেন প্রয়োজনীয় ও নির্ভরযোগ্য তথ্য-রিসোর্স? নিজের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য কী পদক্ষেপ নেবেন? দেখে নিন এই রিসোর্স গাইড থেকে।