ফ্রিল্যান্স অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা: জেনে নিন কীভাবে পিচ করবেন

English

একজন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক কোনো গণমাধ্যমের কাছে একটি সাধারণ রিপোর্ট যেভাবে প্রস্তাব করেন, একই পদ্ধতিতে অনুসন্ধানী রিপোর্টও প্রস্তাব করতে হয়। কিন্তু অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের বেলায় প্রস্তাব বিক্রি করা একটু কঠিন। কারণ, এ ধরনের ওয়াচডগ সাংবাদিকতায় আগ্রহী হওয়ার মতো গণমাধ্যমের সংখ্যা খুব বেশি নয়।

অনিশ্চিত ও বিতর্কিত ফল আসতে পারে, এমন অনুসন্ধান পিচ বা প্রস্তাব করার বিষয়টি আরও চ্যালেঞ্জিং। এ ক্ষেত্রে দুই পক্ষের মধ্যে পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্বাসের দরকার হয়।

সমস্যা আরও আছে। যে টাকা পাওয়া যায়, তাতে দীর্ঘ সময় ধরে চলা অনুসন্ধানের বাড়তি খরচ মেটানোও অনেক সময় দায় হয়ে পড়ে। অনুসন্ধানটিতে আপনার ঠিক কতটা সময় ও শ্রম দিতে হবে, তা অনুমান করাও খুব কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। ফলে লাভ-খরচের খসড়া হিসাব করতে গেলেও সেটি আন্দাজে ঢিল ছোড়া ছাড়া আর কিছু হয় না।

সবশেষে, এই কাজে ব্যক্তিগত ঝুঁকি থাকে। বিতর্কিত ইস্যুতে কাজ করতে গিয়ে ফ্রিল্যান্সাররা অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে পারেন; পড়তে পারেন আইনি ও শারীরিক ঝুঁকির মুখে; যা হয়তো সংবাদমাধ্যমগুলোর ধারণার বাইরে।

অনুসন্ধানটিতে আপনার ঠিক কতটা সময় ও শ্রম দিতে হবে, তা অনুমান করাও খুব কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। ফলে লাভ-খরচের খসড়া হিসাব করতে গেলেও সেটি আন্দাজে ঢিল ছোড়া ছাড়া আর কিছু হয় না।এত কিছুর পরেও অনেকেই কাজ করছেন ফ্রিল্যান্স অনুসন্ধানী সাংবাদিক হিসেবে। কারণ, এই কাজে স্বাধীনতা আছে। কোন সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কাজ করবেন, কোন বিষয় নিয়ে কাজ করবেন—সবকিছুই তিনি নিজেই বেছে নিতে পারেন। কেউ কেউ সম্পাদক ও সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক গড়ে তোলেন। কেউ কেউ বাড়তি আয়ের জন্য এর পাশাপাশি আরও নানা কাজ করেন। নিজেদের পরিচিতি ও আয় বাড়িয়ে নেন লেখক, শিক্ষক ও পরামর্শক হিসেবে কাজ করে।

বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের ভিত্তিতে এই লেখায় জিআইজেএন তুলে ধরেছে: একজন ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক হিসেবে দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমের কাছে কীভাবে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের প্রস্তাব জমা দেবেন এবং কাজ পাওয়ার পথে মূল বাধাগুলো কীভাবে মোকাবিলা করবেন।

আমরা এখানে যে বিষয়গুলোতে নজর দিয়েছি:

সম্ভাব্য সংবাদমাধ্যম খুঁজে বের করা
কার্যকরভাবে প্রতিবেদন পিচ করা
চিন্তা ও আইডিয়ার সুরক্ষা
বাজেট তৈরি করা

এই গাইডের বাইরে কোভিড-১৯ মহামারির সময় ফ্রিল্যান্সারদের জন্য বিশেষ পরামর্শ ও কৌশল শিরোনামে আরেকটি লেখা তৈরি করেছে জিআইজেএন।
সম্ভাব্য সংবাদমাধ্যম খুঁজে বের করা
কোনো সংবাদমাধ্যম একজন অনুসন্ধানী সাংবাদিকের ওপর তখনই বাজি ধরে, যখন তাদের গভীর বিশ্বাস ও আস্থা থাকে; যে কারণে ব্যক্তিগত সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রয়োজন দেখা দেয়।

শুরু করুন—অনুসন্ধানী নয়, এমন প্রতিবেদন দিয়ে। এটি সম্পর্ক গড়ে তোলার ভালো উপায়। হুট করে একটি সংবেদনশীল প্রতিবেদন নিয়ে গিয়ে সেটি বিক্রির চেষ্টা করা কঠিন হতে পারে।

এ ক্ষেত্রে সাধারণ পরামর্শ হলো: বিভিন্ন সেমিনার বা সম্মেলনে গিয়ে সমমনা সম্পাদকদের সঙ্গে আলাপ করা।

গবেষণা করে নিন

আপনি যাদের কাছে আপনার প্রতিবেদন প্রস্তাব করতে পারেন, এমন সম্ভাব্য সংবাদমাধ্যমের ওপর গবেষণা করুন। সাধারণত অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে, শুধু এমন সংবাদমাধ্যমই নয়, বরং আপনার অনুসন্ধানের বিষয় নিয়ে আগ্রহ আছে, এমন প্রতিষ্ঠানেরও খোঁজ করুন।

সম্ভাবনা আছে, এমন মনে হলে এসব বিষয়ে আরও খোঁজখবর করুন:

দেখুন, আপনার বিষয়টি নিয়ে আগে কী কী প্রকাশিত হয়েছে।
তাদের দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে জানুন।
তাদের মিশন সম্পর্কে আরও খুঁটিয়ে দেখুন।
শীর্ষ সম্পাদকদের ব্যাপারে খোঁজখবর করুন।
খোঁজ নিন, পরিচিত এমন কেউ আছে কি না, যার সঙ্গে তাদের ব্যক্তিগত যোগাযোগ আছে, এবং যিনি আপনাকে সেখানে নিয়ে যেতে পারেন।

২০১৯ সালের জিআইজেএন সম্মেলনে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে একাধিক সেশন ছিল। সেই আলোচনা নিয়ে একটি প্রবন্ধে রোয়ান ফিলিপ লিখেছিলেন, “সংবাদ সংগ্রহ প্রক্রিয়ার প্রতিটি অংশের যথাযথ মূল্য” বের করে আনার জন্য আপনাকে বিষয়টি একাধিক মাধ্যমে বিক্রি করার কথা চিন্তা করতে হবে।

অভিজ্ঞ ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক রোয়ান লিখেছেন, “বিকশিত হতে গেলে বা এমনকি টিকে থাকতে গেলেও প্রতিটি রিপোর্টিং কর্মকাণ্ড একাধিক জায়গায় বিক্রি করাকে অভ্যাস বানিয়ে ফেলতে হবে ফ্রিল্যান্স অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের।”

এই সেশনের আলোচকেরা বলেছিলেন, কীভাবে আয় বাড়িয়ে নেওয়ার জন্য সাংবাদিকেরা একই অনুসন্ধানকে প্রিন্ট, ভিজ্যুয়াল ও অডিওসহ নানা রকম ভিন্ন ভিন্ন ফরম্যাটে উপস্থাপনের কথা চিন্তা করতে পারেন।
এবার প্রস্তাব তৈরি করুন

প্রতিবেদন কোন জায়গায় পাঠাবেন, তা ঠিক করে ফেলার পর আপনাকে প্রস্তাব তৈরি করতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের সাধারণ পরামর্শগুলো অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিক্রির ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। প্রতিবেদনের প্রস্তাব হওয়া উচিত যথাযথ, বলিষ্ঠ ও আকর্ষণীয়।

“সম্পাদককে আপনার বোঝাতে হবে যে, কাজটির জন্য আপনিই সঠিক ব্যক্তি। আসলে তাকে বোঝাতে হবে: এই প্রতিবেদন একমাত্র আপনিই করতে পারেন।” — সাংবাদিক কাতালিনা লোবো গেরেরো“সম্পাদককে আপনার বোঝাতে হবে যে, কাজটির জন্য আপনিই সঠিক ব্যক্তি। আসলে তাকে বোঝাতে হবে: এই প্রতিবেদন একমাত্র আপনিই করতে পারেন। কারণ, বিষয়টির ইতিহাস, প্রেক্ষাপট, সোর্স, অভিজ্ঞতা ইত্যাদি সম্পর্কে আপনার ভালো ধারণা আছে। বা আপনার কাছে ফাঁস হওয়া এমন কিছু নথি আছে, যা অন্য কারও কাছে নেই,” বলেছেন কলম্বিয়ার ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক ও জিআইজেএন-এর সাবেক সম্পাদক কাতালিনা লোবো গেরেরো।

সম্পাদকদের পরামর্শ

২০১৭ সালের এক সাক্ষাৎকারে এই পরামর্শগুলো দিয়েছিলেন আটলান্টিকের জাতীয় সংবাদ বিভাগের সম্পাদক স্কট স্টোসেল:

কিছু প্রি-রিপোর্টিং করুন। আপনার প্রতিবেদনের পিচ বা প্রস্তাবটি যেন সুবিবেচনাপ্রসূত হয়, তা নিশ্চিত করুন।
বিস্তারিত বর্ণনা দিন। এখানে কোন কোন চরিত্র সম্পৃক্ত, পরিণাম কী হতে পারে এবং পাঠকের জন্য বিষয়টি কেন গুরুত্বপূর্ণ, তা তুলে ধরুন।
আপনার লেখনীর দক্ষতা দেখান। আপনার এই প্রস্তাবটিই যেন একটি গল্প বলে দেয় এবং এখানেই যেন প্রতিবেদনের দৃষ্টিভঙ্গিটি ফুটে ওঠে।
কিছুটা নাটকীয় ভাব রাখুন। প্রস্তাবটিতেও সেই নাটকীয়তার কেন্দ্রে চলে যান।
সংবাদের গুরুত্ব বুঝুন। সমসাময়িক সংবাদের সঙ্গে এটির সংযোগ যত স্পষ্ট হবে, তত ভালো।
সময়োপযোগী করে তুলুন।

কনরাড অ্যাডেনাওয়ার স্টিফটুং-এর গ্লোবাল মিডিয়া প্রোগ্রাম প্রণীত, ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম ম্যানুয়াল অনুযায়ী, একটি প্রস্তাবের মধ্যে থাকা উচিত:

প্রতিবেদনের ধারণা
প্রতিবেদনটি কেন এই নির্দিষ্ট সংবাদমাধ্যম বা তাদের পাঠকদের জন্য যথার্থ
কাজের দৃষ্টিভঙ্গি ও পদ্ধতি নিয়ে সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
সময় পরিকল্পনা
বাজেট

প্রতিবেদন প্রস্তাব লেখা নিয়ে একটি টিপশিট তৈরি করেছিলেন টাইপ ইনভেস্টিগেশনের (পূর্বের ইনভেস্টিগেটিভ ফান্ড) নির্বাহী সম্পাদক সারাহ ব্লুস্টেইন। সেখানে তিনি জোর দেন প্রস্তাবটিকে “ছোট রাখা”, “সুনির্দিষ্ট হওয়া” এবং “প্রতিবেদনটি সামনে নিয়ে যাওয়ার জন্য সম্পাদকদের যা যা প্রয়োজন, তা সরবরাহ করার” দিকে। তিনি সাধারণত চার অনুচ্ছেদের একটি প্রতিবেদন প্রস্তাব তৈরির পরামর্শ দেন, যেখানে এই চারটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস থাকতে হবে:

প্রতিবেদনটি কী নিয়ে।
কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ এবং কেন এটি এই সময়ে গুরুত্বপূর্ণ।
আপনি কী কী খুঁজে পেয়েছেন।
কেন একমাত্র আপনারই এই বিষয়টি নিয়ে লেখা উচিত।

অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করে, যুক্তরাষ্ট্রের এমন একটি ম্যাগাজিন, মাদার জোনসও তাদের ফ্রিল্যান্স লেখক গাইডলাইনে এই বিষয়গুলোর দিকে জোর দিয়েছে:

“অল্প কয়েকটি অনুচ্ছদের মধ্যে আমাদের বলুন: আপনি কোন বিষয়টি কাভার করার পরিকল্পনা করছেন, কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ ও আকর্ষণীয় এবং কীভাবে আপনি এটি রিপোর্ট করবেন। এখানে আপনার কাজের দৃষ্টিভঙ্গি, পদ্ধতি, প্রকাশভঙ্গি ইত্যাদি উঠে আসবে। এবং আপনাকে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে হবে: এই বিষয়টি নিয়ে লেখার জন্য আপনার কী কী নির্দিষ্ট যোগ্যতা আছে? সোর্সের সঙ্গে আপনার বোঝাপড়া কেমন? এই বিষয়ে যদি অন্য আরও অনেক বড় প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়, তাহলে আপনারটি কীভাবে সবার চেয়ে আলাদা ও ভালো হবে?”

“আপনার পূর্ব অভিজ্ঞতা সম্পর্কে দু-এক লাইন ও প্রাসঙ্গিক দু-তিনটি কাজের কথা যোগ করবেন।”

“অল্প কয়েকটি অনুচ্ছদের মধ্যে আমাদের বলুন: আপনি কোন বিষয়টি কাভার করার পরিকল্পনা করছেন, কেন এটি গুরুত্বপূর্ণ ও আকর্ষণীয় এবং কীভাবে আপনি এটি রিপোর্ট করবেন” – মাদার জোনস দ্য পিচ: অ্যাট দ্য গার্ডিয়ানস লং রিড, নো রিজিড ফর্মুলা অর জিওগ্রাফিক্যাল লিমিটস – ২০১৮ সালের নিম্যান স্টোরিবোর্ডে প্রকাশিত এই প্রবন্ধ, ঠিক অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা নিয়ে নয়। কিন্তু এখানে প্রতিবেদনের প্রস্তাব তৈরি নিয়ে অনেক খোলামেলা আলাপ করা হয়েছে। “সম্পাদকের পরামর্শ: আগে কী প্রকাশিত হয়েছে, সে বিষয়ে গবেষণা করুন। নির্ভরযোগ্য, নতুন ও ‘মনোযোগ আটকে রাখার মতো’ কিছু করুন। সাহস করে, একটা দারুণ পিচ পাঠিয়ে দিন।”

অনুদানের কথা মাথায় রেখে লেখা হলেও, এরিক কারস্টেন্সের এই লেখায় (হাও নট টু উইন আ জার্নালিজম গ্র্যান্ট) কোনো বিষয় উপস্থাপন করা নিয়ে ভালো কিছু ধারণা দেওয়া হয়েছে। ২০১৮ সালে এটি জিআইজেএন-এ পুনঃপ্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন প্রস্তাব পাঠানো নিয়ে সলিউশন জার্নালিজম নেটওয়ার্কের তিন পর্বের সিরিজের দ্বিতীয় পর্ব ছিল: হোয়াট এডিটরস আর লুকিং ফর ইন সলিউশন পিচেস। এখানে আটটি বিষয় তুলে ধরেছিলেন জুলিয়া হটজ:

১. “পাঠকদের জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ? ”- এই প্রশ্নের স্পষ্ট, বিস্তারিত ও সময়োপযোগী উত্তর দিতে হবে।

২.