প্রবেশগম্যতা সেটিংস

GIJC23
GIJC23

লেখাপত্র

২০২৩ সালের গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম কনফারেন্স সুইডেনের গোথেনবার্গে

আর্টিকেলটি পড়ুন এই ভাষায়:

English

কৃতজ্ঞতা: পার পিক্সেল পিটারসন/imagebank.sweden.se

২০২৩ সালের গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম কনফারেন্স (জিআইজেসি২৩) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সুইডেনের ঐতিহাসিক শহর গোথেনবার্গে। তারিখ ধার্য্য  হয়েছে ১৯ – ২২শে সেপ্টেম্বর৷

গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম নেটওয়ার্ক (জিআইজেএন) জিআইজেসি২৩-এর দুই স্থানীয় সহ-আয়োজক লিনিয়াস ইউনিভার্সিটির ফোয়ো মিডিয়া ইনস্টিটিউট এবং সুইডেনের অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের জাতীয় সমিতি ফরেনিংগেন গ্রাভান্দে জার্নালিস্টার সঙ্গে যোগ দিতে পেরে আনন্দিত। এবারের ভেন্যু হল বিশ্বমানের সুইডিশ এক্সিবিশন অ্যান্ড কংগ্রেস সেন্টার

গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম কনফারেন্স অনুসন্ধানী সাংবাদিক ও সম্পাদকদের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক সমাবেশ এবং জিআইজেসি২৩ হবে এর ত্রয়োদশ আয়োজন। সম্মেলনে সর্বাধুনিক টুল ও কৌশলের ওপর প্রশিক্ষণ, অত্যাধুনিক কর্মশালা, এবং বিস্তৃত নেটওয়ার্কিং ও ব্রেনস্টর্মিং সেশনের ব্যবস্থা আছে।

জিআইজেএনের পরিচালনা পর্ষদের প্রধান ব্রান্ট হিউস্টন জানান, “জিআইজেএনের প্রথম বৈশ্বিক সম্মেলন যেখানে হয়েছিল, ২০তম বার্ষিকীতে সেই ইউরোপে ফিরে আসা সময়োপযোগী ও যথাযথ বলে মনে হয়েছে।” “আন্তর্জাতিক অনুসন্ধানী কাজের ইতিহাস সমৃদ্ধ আমাদের সুইডিশ সহকর্মীরা জিআইজেএনের বড় সমর্থক, আর তাই গোথেনবার্গে এই সম্মেলনের আয়োজন দারুণ রোমাঞ্চকর হবে।”

Fojo Media Institute

জিআইজেসি২৩-এর স্থানীয় সহ-আয়োজকদের একটি ফোয়ো মিডিয়া ইনস্টিটিউট। ছবি: ফোয়োর সৌজন্যে

ফোয়ো মিডিয়া ইনস্টিটিউটের পরিচালক কেরস্টি ফর্সবার্গ বলেছেন, “জিআইজেসি ২০২৩-এর সহ-আয়োজক হওয়াটা সম্মানের ব্যাপার, এবং মজারও। আর ফোয়োর পক্ষ থেকে গোথেনবার্গ সম্মেলনকে শিক্ষা ও অভিজ্ঞতা ভাগাভাগির চমৎকার জায়গা করে তুলতে আমাদের চেষ্টার কমতি থাকবে না৷”

“সব আন্তর্জাতিক সহকর্মীদের আবার এক ছাতার নিচে আনতে আমরা মুখিয়ে আছি,” ফরেনিংগেন গ্রাভান্দে জার্নালিস্টার পর্ষদ প্রধান উল্লা স্যাটেরেই যোগ করেন ৷ “নেটওয়ার্কিং ও আন্তঃসীমান্ত সহযোগিতা এখন আগের চেয়ে আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে একটি বিশ্বমানের সম্মেলন উপহার দিতে আমরা বদ্ধপরিকর।”

মূলত অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে আয়োজনের পরিকল্পনা থাকলেও, কনফারেন্সের স্থানীয় আয়োজকদের কিছু বদলে যাওয়া পরিস্থিতির কারণে জিআইজেসি২৩ স্থানান্তর করতে হয়। জিআইজেএন আশা করছে, ভবিষ্যতের কোনো সম্মেলন হয়ত অস্ট্রেলিয়ায় আয়োজন করা হবে।

আগের গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম কনফারেন্সগুলো ব্রাজিল, ডেনমার্ক, জার্মানি, নরওয়ে, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইউক্রেনসহ নয়টি দেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতি দু’বছর পর পর এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় এবং সেখানে সাধারণত ১২০টিরও বেশি দেশ থেকে দেড় হাজারের বেশি সাংবাদিকের জমায়েত হয়।

FGV Foreningen Gravande Journalister logo

সুইডেনের অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের জাতীয় সংস্থাও নিজ দেশে জিআইজেসি২৩-এর সহ-আয়োজকের ভূমিকা পালন করবে। ছবি: এফজিজের সৌজন্যে

বিগত বছরগুলোর মত, গ্লোবাল সাউথ (প্রান্তিক ও তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলো) ও অন্যান্য অঞ্চলের সাংবাদিকদের সম্মেলনে আনতে জিআইজেসি২৩ একটি বড় ফেলোশিপ কর্মসূচির ব্যবস্থা করবে। এই ব্যাপক প্রভাব বিস্তারকারী আয়োজনের সমর্থনে দাতা ও সহ-পৃষ্ঠপোষক হতে আগ্রহীরা hello@gijn.org-এ আয়োজকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন৷

জিআইজেএনের ২০তম বার্ষিকী উদযাপনের পাশাপাশি, আগামী বছর সুইডেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর গোথেনবার্গ ৪০০ বছরে পা রাখবে৷ ঐতিহাসিক সমুদ্রবন্দরটি খাল, সারি সারি গাছে ঘেরা রাস্তা, বিশ্ববিদ্যালয় ও ক্যাফের জন্য পরিচিত।

সুইডেনের দক্ষিণাঞ্চলের লিনিয়াস ইউনিভার্সিটির ফোয়ো মিডিয়া ইনস্টিটিউট আরও গণতান্ত্রিক ও টেকসই বিশ্ব গঠনে অবদান রাখতে সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমকে শক্তিশালী ও বিকশিত করার লক্ষ্য নিয়ে বিশ্বব্যাপী অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে।

সুইডেনের অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সংস্থা ফরেনিংগেন গ্রাভান্দে জার্নালিস্টা (এফজিজে) একটি অলাভজনক সংস্থা। সংস্থাটি গভীর, সমালোচনাধর্মী সাংবাদিকতার প্রচার ও প্রসারে কাজ করে। সাংবাদিকদের মধ্যে জ্ঞানের আদান প্রদান বৃদ্ধির লক্ষ্যে তারা কোর্স ও সেমিনার আয়োজন করে।

গ্লোবাল ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম নেটওয়ার্ক ৮৯টি দেশে ২৩৫টি অলাভজনক সদস্য প্রতিষ্ঠানসহ বিশ্বের অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের আন্তর্জাতিক সংযোগস্থলের ভূমিকা পালন করে। ক্ষমতার অপব্যবহার ও জবাবদিহি ঘাটতির পেছনে ছুটতে ওয়াচডগ রিপোর্টারদেরকে টুল, প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ দিতে সংগঠনটির কর্মীরা দৈনিক এক ডজন ভাষায় কাজ করে।

আরও তথ্যের জন্য, যোগাযোগ করুন hello@gijn.org.

ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের অধীনে আমাদের লেখা বিনামূল্যে অনলাইন বা প্রিন্টে প্রকাশযোগ্য

লেখাটি পুনঃপ্রকাশ করুন


Material from GIJN’s website is generally available for republication under a Creative Commons Attribution-NonCommercial 4.0 International license. Images usually are published under a different license, so we advise you to use alternatives or contact us regarding permission. Here are our full terms for republication. You must credit the author, link to the original story, and name GIJN as the first publisher. For any queries or to send us a courtesy republication note, write to hello@gijn.org.

পরবর্তী

কোভিড-১৯: বিশেষজ্ঞ চোখে অনুসন্ধানী অ্যাঙ্গেল

করোনাভাইরাস এই দশকের সবচেয়ে বড় স্টোরি। কিন্তু মহামারির আড়ালে লুকিয়ে থাকা অন্যায়, অনিয়ম, বৈষম্য বা দুর্নীতির খবরগুলোকে কি আমরা ঠিকমত তুলে আনতে পারছি? যদি লুকোনো সেই সত্যটাকে তুলে আনতে চান আপনার অনুসন্ধান দিয়ে, তাহলে কোন কোন দিকে নজর দেবেন? কী নিয়ে রিপোর্ট করবেন? সম্ভাব্য অ্যাঙ্গেলই-বা কী হবে? উত্তর জানতে পড়ুন, স্বনামধন্য ১৩ সাংবাদিকের পরামর্শ।

সাংবাদিকতার পাঠক বাড়াতে স্যাটায়ার

“হাসি” এমন এক বস্তু যা চরম আশাহীনতার মধ্যেও শক্তি যোগায়;  যেখানে ভয়ের রাজত্ব, সেখানেও মানুষের মনে সাহস জাগায়। যদি দক্ষতার সাথে তৈরি করা যায়, তাহলে স্যাটায়ারই তুলে ধরতে পারে রুঢ় সত্য, প্রতিরোধ হয়ে দাঁড়াতে পারে কুসংস্কারের বিরুদ্ধে, বিষয়বস্তুকে করে তুলতে পারে প্রাণবন্ত, আর পাঠককে বিনোদন দিতে পারে এমনভাবে যা সোজাসাপ্টা সাংবাদিকতার মাধ্যমে সম্ভব নয়। কিন্তু সাংবাদিকতায় স্যাটায়ার করা কি এতোই সহজ? উত্তর পাবেন এখানে। 

“স্পটলাইট” সিনেমা থেকে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার ৮ শিক্ষা

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা নিয়ে অন্যতম শ্বাসরুদ্ধকর ও অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ চলচ্চিত্র “স্পটলাইট”। এর অসাধারণ চিত্রনাট্য দর্শককে নিয়ে যায় বস্টন গ্লোবসের অনুসন্ধানী দলটির ভেতরে; যারা ফাঁস করে দিয়েছিল কুখ্যাত একটি অপরাধের ঘটনা। তুলে এনেছিল ক্যাথলিক চার্চে কয়েক হাজার শিশু যৌন নিপীড়ন এবং সব জেনেও তা ধামাচাপা দেওয়ার কাহিনী। চলচ্চিত্রটি আপনাকে শেখাবে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার কয়েকটি মৌলিক বিষয়ও।

ব্যর্থতাকে আলিঙ্গন করুন, নিজের ভুল থেকেই শিখুন

ওপেন সোর্স রিপোর্টিং ও গোয়েন্দা সংস্থায় কর্মরত লোকজন ভীষণ বুদ্ধিমান। সারাক্ষণ নিজের গণ্ডি ভাংছেন নিজেই। কিন্তু তাঁদের জীবন কি শুধুই সফলতায় মোড়া? নিশ্চয়ই না। তাঁরাও ব্যর্থ হয়েছেন। সেখান থেকে শিক্ষা নিয়ে আবার এগিয়ে গেছেন।